rss
প্রকাশ : ২৬ মার্চ ২০১৪, ২১:২৪:০৬ | আপডেট : ২৬ মার্চ ২০১৪, ২১:২৪:১৮অ-অ+
printer
লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা

' গিনেস রেকর্ডের ফল ২ সপ্তাহের মধ্যেই'

অনলাইন ডেস্ক

দেশের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের অংশগ্রহণের মধ্যে দিয়ে বুধবার অনুষ্ঠিত হলো জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়ার মহতি আয়োজন।' গিনেস রেকর্ডের ফল ২ সপ্তাহের মধ্যেই'

সরকারি বার্তাসংস্থা বাসস এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, রাজধানীর জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে উপস্থিত তিন লাখেরও বেশি মানুষের কন্ঠে একই সাথে একই সুরে ধ্বনিত হলো-আমার সোনার বাংলা...। গাইলো বাংলাদেশ। গাইলো বিশ্ব বাঙালী।

জাতীয় সঙ্গীত গাইবো,বিশ্ব রেকর্ড গড়বো- এই শ্লোগানে সমগ্র জাতি একাত্ম হয়ে অংশ নেয় বাংলাদেশকে আরেকটি বড় অর্জনের দিকে নিয়ে যেতে। সবাই নিজের চেতনাকে উন্মুক্ত করে গাইলেন। এখন গিনেস বুকের ফলাফলের অপেক্ষা। কখন আসবে সেই ফলাফল। কেমন করে আসবে?

সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বাসসকে বলেন,সবাই এক সময়ে,একসুরে,উচ্চস্বরে জাতীয় সঙ্গীত গাইছেন কিনা- এটি ছিলো একটি বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ শতকরা ৫ শতাংশ মানুষও যদি কন্ঠ না মেলান তাহলে আয়োজনটি গিনেস বুক কর্তৃপক্ষের কাছে বিবেচিত হবে না।

তিনি জানান, জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়ার এই আয়োজনে আনুষ্ঠানিক গণনা অনুযায়ী ২ লাখ ৫৪ হাজার ৬৮১ জন অংশ নিলেও জাতীয় প্যারেড স্কোয়ারে সমবেত হয়েছিলেন তিন লাখের ও বেশি মানুষ। সমবেত কন্ঠে গাওয়া জাতীয় সঙ্গীত রেকর্ড করাসহ প্রয়োজনীয় শর্তগুলো পূরণ হচ্ছে কিনা তা পর্যবেক্ষণের জন্য গিনেস বুক কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের চুল চেরা বিশ্লেষণ করে তারা শীঘ্রই ফলাফল জানাবেন।

বাসস জানায়, দুই সপ্তাহের মধ্যেই গিনেস বুকের ফলাফল হাতে এসে পৌঁছাবে বলে আশা প্রকাশ করেন সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের সামরিক-বেসামরিক পরিদপ্তরের মহাপরিচালক কমোডর কাজী এমদাদুল হক।

কমোডর এমদাদ জানান,গিনেস বুক কর্তৃপক্ষের পর্যবেক্ষণের সুবিধার্থে প্যারেড স্কোয়ারে প্রতি ৫০ জনকে নিয়ে একেকটি ব্লক তৈরি করা হয়। এ অনুযায়ী ছয় হাজার ব্লক ছিলো। এর প্রত্যেক ব্লকে গিনেস বুক কর্তৃপক্ষের মনোনীত একজন করে প্রতিনিধি রেফারির দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি বলেন,সার্বিক আয়োজন সম্পর্কিত ভিডিও ফুটেজ,আলোকচিত্র ও রেফারিদের পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন গিনেস কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানোর পর তারা তথ্যাদি বিচার বিশ্লেষণ করে ফলাফল প্রকাশ করবে। এজন্যে সর্বোচ্চ দুই সপ্তাহ সময় লাগতে পারে।

বাসস জানায়, বাংলাদেশের ৪৪তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজন করা হয় 'লাখো কন্ঠে সোনার বাংলা' শীর্ষক এই অনুষ্ঠানের। বুধবার সকাল ১১:২০:৫ সেকেন্ডে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডসহ সারাদেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,প্রশাসনিক কার্যালয়সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়ার আয়োজনে অংশ নেন দেশের শিক্ষক,শিক্ষার্থী,মুক্তিযোদ্ধা, কৃষক,শ্রমিক ও সাধারণ মানুষ। ১১:২২:৫৮সেকেন্ডে শেষ হয় জাতীয় সঙ্গীতের নির্ধারিত অংশ গাওয়া। উচ্ছাস ও আশা নিয়ে শেষ হয় এই মহতি আয়োজন।

এর আগে লাখো কন্ঠে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার বিশ্ব রেকর্ড তৈরি করে ভারত। 

এ সংক্রান্ত আরো খবর
মন্তব্য
সর্বশেষ ১০ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
powered by :
Copyright © 2014. All rights reserved